Breaking

Post Top Ad

Your Ad Spot

Thursday, December 1, 2016

২৫০ কোটি টাকার মালিক বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব!

সম্প্রতি আন্তর্জাতিক ম্যাচে আট হাজার
রান ও চারশ উইকেট নেয়া মাত্র ষষ্ট
ক্রিকেটার হিসেবে ইতিহাসে নাম
লেখিয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার
সাকিব অাল হাসান। ক্রিকেটের বাইশ গজে
নিজের পারফসমেন্স দিয়ে বিশ্বের
সেরাদের তালিকায় নাম লিখিয়েছেন
তিনি। আর এ জনপ্রিয়তা ক্রিকেটের
বাইরেও এনে দিয়েছে ব্যাপক সম্মান এবং
অর্থ। ইতোমধ্যেই ২৫০ কোটি টাকারও বেশি
মূল্যের সম্পদের মালিক হয়েছেন সাকিব।
ক্রিকেটারদের সম্পদের হিসেব করলে সবার
আগে যাদের নাম আসে, তাদের বেশির
ভাগই ভারতীয় ক্রিকেটার। একশ কোটি
মানুষের দেশে ক্রিকেটকে দেখা হয় ধর্মের
মতো। সেই দেশে ক্রিকেটাররা বিপুল
সম্পদের মালিক হবেন সেটাই স্বাভাবিক।
ক্রিকেট জনপ্রিয়তায় ভারতকে টেক্কা
দিতে পারা একমাত্র দেশ- বাংলাদেশ।
এখানেও ক্রিকেটটা এখন সংস্কৃতির অংশ।
বাংলাদেশ দলের একেকটা জয় এখানে
তৈরি করে উৎসবে। বাংলাদেশেও
ক্রিকেটাররা বড় তারকা। তাদের আয়
রোজগারও অন্য যে কোনো ক্ষেত্রের চেয়ে
অনেক বেশি।
বাংলাদেশের ইতিহাসের সেরা
ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। আইপিএল,
বিপিএল, বিগব্যাশ, সিপিএলের মতো
ঘরোয়া আসরগুলো নিয়মিত খেলেন তিনি।
এই সব লিগ খেলে মোটা অঙ্কের অর্থ আয়
করেন তিনি। শুধু মাত্র আইপিএল থেকেই কয়েক
কোটি টাকা আয় হয় সাকিবের।
সম্প্রতি বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার চুক্তিবদ্ধ
হয়েছেন পাকিস্তান ক্রিকেট লিগে
খেলার জন্য।
একটা সমীক্ষায় দেখা গেছে ভারতীয়
কয়েকজন শীর্ষ ক্রিকেটারের পরে সাকিবই
বিশ্বের সবচেয়ে বেশি সম্পদশালী
ক্রিকেটার। বাংলাদেশি ক্রিকেট
সমর্থকদের জন্য এটা নিঃসন্দেহে একটি
গর্বের বিষয়।
সাকিবের বেশির ভাগ অর্থই আয় হয় বিভিন্ন
ব্রান্ডের অ্যাম্বাসেডর হিসেব। তিনি
পেপসি, বুস্ট, লাইফবয় এবং স্ট্যান্ডার্ড
চার্টার্ড ব্যাংকের মতো বড় বড়
প্রতিষ্ঠানে দূত হিসেবে কাজ করেছেন। এই
কাজ থেকে বিপুল অর্থ আয় করেছেন তিনি। এ
ছাড়া লিগগুলো খেলেও সাকিবের
অ্যাকাউন্টে জমা হয় মোটা অঙ্কের টাকা।
তার নিজস্ব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানও আছে।
গেল বছর কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে
খেলেছেন সাকিব আল হাসান। আইপিএলের
সর্বশেষ সংস্করণে সাকিবের মূল্য ছিল চার
লাখ ২৫ হাজার ইউএস ডলার।
বিপিএলের প্রথম দুই আসরে ক্রিকেটারদের
পারিশ্রমিক নির্ধারিত হয়েছিল
নিলামের মাধ্যমে। কিন্তু এবার দেশি-
বিদেশি খেলোয়াড়দের পারিশ্রমিকের
শ্রেণিবিন্যাস আগেই ঠিক করে দেয়
বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল।
বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা সর্বোচ্চ
পারিশ্রমিক পান ৩৫ লাখ টাকা।
সেক্ষেত্রে রংপুর রাইডার্সের সাকিব আল
হাসান পান সর্বোচ্চ ৩৫ লাখ টাকা। কিছু
দিনের মধ্যেই শুরু হতে যাওয়া পাকিস্তান
সুপার লিগেও (পিসিএল) খেলছেন সাকিব
আল হাসান। ক্রিকেটারদের পাঁচটি ভাগে
ভাগ করা হয়েছে- প্লাটিনাম, ডায়মন্ড,
গোল্ড, সিলভার ও এমার্জিং।
সাকিব প্লাটিনাম ক্যাটাগরিতে
রয়েছেন। আর প্লাটিনাম ক্যাটাগরির
খেলোয়াড়রা পাবেন এক লাখ ৪০ হাজার
ডলার। অর্থ্যাৎ বাংলাদেশি টাকায়
বিশ্বসেরা এইঅলরাউন্ডার পাবেন এক
কোটি নয় লাখ ১৯ হাজার টাকা।
আর এগুলোই প্রমাণ করে সাকিব
বাংলাদেশের সর্বোচ্চ অর্থ উপার্জনকারী
ক্রিকেটার। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশের
সর্বোচ্চ অর্থ উপার্জনকারীদের মধ্যেও সে
অন্যতম।

Post Top Ad

Your Ad Spot

Pages