Breaking

Post Top Ad

Your Ad Spot

Wednesday, December 28, 2016

গরমে লেবু…

টক মিষ্টি স্বাদে ভরা লেবুর উপকারী গুণাগুণ মানুষের অজানা নেই। গ্রীষ্মের গরমে লেবুর শরবত খেতে কেনা ভালবাসে। এই সাধারণ ফলটি কিন্তু পুষ্টিগুণে টেক্কা দিতে পারে যেকোনো ফলকে। এর মাঝে একটা প্রধান উপকারিতা হলো শরীরের সার্বিক রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি। আরেকটা হলো হজম শক্তি বাড়ানো এবং ওজন কমানোর ক্ষমতা। লেবুতে সাইট্রিক এসিড-এর পাশাপাশি আরও রয়েছে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, বায়ো ফ্লাভোনোয়েড, পেক্টিন এবং লিমোনিন।
গরমে লেবু
লেবুর উপকারিতা :
লেবুতে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, যা এন্টিসেপটিক ও ঠাণ্ডা লাগা প্রতিরোধ করে। লেবুর এই উপাদানগুলো টনসিল প্রতিরোধ করে।এতে আরও আছে পটাসিয়াম, যা মস্তিষ্ক এবং স্নায়ুকে সক্রিয় রাখে এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। এতে থাকা অ্যাসকরবিক এসিড প্রদাহ দূর করে এবং অ্যাজমা বা এ জাতীয় শ্বাস-কষ্টের সমস্যা কমায়। এছাড়াও কফ কমাতে সাহায্য করে লেবু।
এছাড়া লেবুর ভিটামিন সি ক্যান্সারের সেল গঠন প্রতিরোধ করে।
লেবু বুক জ্বালা প্রতিরোধ করতে ও আলসার সারাতে সাহায্য করে।
ক্ষতস্থান সেরে ওঠার প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করে ক্ষত স্থান সেরে তুলতে সাহায্য করে অ্যাসকরবিক এসিড। আর হাড়ের স্বাস্থ্য বজায় রাখতেও এটি সহায়ক। স্ট্রেস এবং যে কোনো ধরণের ব্যথার উপশম করে ভিটামিন সি।
লেবু আর্থাইটিস রোগীদের জন্য ভালো।
লেবু শরীরের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া গুলোকে ধ্বংস করে।
লেবু এন্টিঅক্সিডেন্ট। তাই ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধির পাশাপাশি ত্বক পরিষ্কার রাখে। ত্বকের বুড়িয়ে যাওয়া রোধ করে। ব্রণ বা অ্যাকনিস সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া এটি দূর করে।
কালো দাগ ও ত্বকের ভাঁজ পড়া কমায়।
লেবু ওজন কমাতে সাহায্য করে। লেবুতে প্রচুর পরিমাণে পেক্টিন থাকে। আঁশ জাতীয় এই পদার্থ ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণে রাখে। ফলে ওজন কমে। গবেষণায় দেখা গেছে, যাদের খাবারে এমন অম্ল জাতীয় খাবার কমথাকে তাদের ওজন বাড়ে বেশি।
লেবু হজমে সহায়ক ও হজমের সমস্যা দূর করে। আমাদের হজমের জন্য ব্যবহৃত লালা এবং পাচক রসের সাথে বেশ মিল আছে এর গঠন এবং কাজের।
প্রিয়২৪.কম
কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।
শরীরে মূত্রের পরিমাণ বৃদ্ধি করে এবং এর মাধ্যমে খুব দ্রুত ক্ষতিকর এবং বিষাক্ত পদার্থ শরীর থেকে বের হয়ে যায়। এছাড়া মূত্রনালীর স্বাস্থ্য ভালো রাখতেও এটি সহায়ক। শরীরের ভেতরের টক্সিন দূর করে, অন্ত্রনালী, লিভার ও পুরো শরীরকে পরিষ্কার রাখে।
পেট ফোলা জনিত সমস্যা কমায়।
রক্ত পরিশোধন করে।
সাবধানতা :
যাদের গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা আছে তারা অবশ্যই এটি খালি পেটে খাবেন না। কারণ লেবু এসিটিক। তাই ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করে এটি খাবেন।
তাছাড়া লেবুর এসিড দাঁতের এনামেলের জন্য ক্ষতিকর, তাই এই পানীয় খাবার সঙ্গে সঙ্গে কুলি করবেন অথবা পানি খাবেন।
একটা কথা মনে রাখবেন, ওজন কমানোর জন্য এই পানীয় শুধুই সহায়ক মাত্র। সম্পূর্ণ ওজন কমানোর প্রক্রিয়াতে অবশ্যই থাকতে হবে স্বাস্থ্যকর খাবার, নিয়মিত এবং স্বাস্থ্যকর জীবন যাত্রা।

Post Top Ad

Your Ad Spot

Pages