Breaking

Post Top Ad

Your Ad Spot

Friday, December 2, 2016

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ২০১৭ বাংলা  ৮৪

প্রিয় পরীক্ষার্থী, বাংলা বিষয়ের ১৫ নম্বর প্রশ্ন থাকবে রচনা লেখার ওপর। এই প্রশ্নটি হবে যোগ্যতাভিত্তিক। রচনা থাকবে চারটি; এর মধ্যে একটির উত্তর লিখতে হবে। রচনায় ইঙ্গিত দেওয়া থাকবে। অনুশীলনের সুবিধার্থে আজ একটি রচনার নমুনা দেওয়া হলো।
বাংলাদেশের মৃিশল্প/শখের মৃিশল্প/মৃিশল্প
[ভূমিকা—মৃিশল্পের উপকরণ—বিভিন্ন রকম মৃিশল্প—বাংলাদেশের প্রাচীন মৃিশল্প—মৃিশল্পের বর্তমান ব্যবহার—উপসংহার]
ভূমিকা
মানুষ যখন কোনো কিছু সুন্দর করে আঁকে, সুন্দর করে তৈরি করে, সুন্দর সুর করে গেয়ে থাকে, তখন তাকে শিল্প বলা হয়। শিল্পের এই কাজকে বলা হয় শিল্পকলা। আমাদের দেশের সবচেয়ে প্রাচীন শিল্প হচ্ছে মাটির শিল্প। মাটির তৈরি শিল্পকর্মকে বলা হয় মাটির শিল্প বা মৃিশল্প।
মৃিশল্পের উপকরণ
মৃিশল্পের প্রধান উপকরণ হলো মাটি। তবে সব মাটি দিয়ে মৃিশল্পের কাজ হয় না। দো-আঁশ মাটি তেমন আঠালো নয়, আবার বেলে মাটি ঝরঝরে। তাই এগুলো দিয়ে মাটির শিল্প হয় না। মৃিশল্পের জন্য দরকার পরিষ্কার এঁটেল মাটি। এই মাটি বেশ আঠালো।
আবার এঁটেল মাটি হলেই যে তা দিয়ে মৃিশল্পের কাজ করা যাবে, তাও নয়। এর জন্য দরকার অনেক যত্ন আর কঠিন শ্রম। দরকার হাতের নিপুণ কাজ ও সঠিক কারিগরি জ্ঞান। পাশাপাশি প্রয়োজন কিছু ছোটখাটো যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম। এসব যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জামের মধ্যে অন্যতম হলো একটি কাঠের চাকা। এই চাকায় নরম মাটির তাল লাগিয়ে থালা আকারের মাটির পাত্র ও নানা জিনিস তৈরি করেন কুমারেরা।
বিভিন্ন রকম মৃিশল্প
মৃিশল্পের মূল কারিগর আমাদের দেশের কুমার সম্প্রদায়। যুগ যুগ ধরে তারা বংশপরম্পরায় তৈরি করে আসছে নানা রকম মৃিশল্প। এসব মৃিশল্পের মধ্যে রয়েছে মাটির কলসি, হাঁড়ি, সরা, বাসন-কোসন, পেয়ালা, মটকা, জালা, পিঠা তৈরির নানা ছাঁচ ইত্যাদি। এ ছাড়া কুমারেরা তৈরি করে আসছেন উত্সব-পার্বণের জন্য নানা রঙের মাটির
জিনিস—তৈজসপত্র।
বাংলাদেশের প্রাচীন মৃিশল্প
হাঁড়ি-কলসি ছাড়াও আমাদের দেশে একসময় গড়ে উঠেছিল সুন্দর পোড়ামাটির ফলকের কাজ। এর অন্য নাম টেরাকোটা। এই টেরাকোটা বাংলার অনেক পুরোনো শিল্প। নকশা করা মাটির ফলক ইটের মতো পুড়িয়ে তৈরি করা হতো এই টেরাকোটা। শালবন বিহার, মহাস্থানগড়, পাহাড়পুর বৌদ্ধ স্তূপ ও দিনাজপুরের কান্তজির মন্দিরে এই টেরাকোটার কাজ রয়েছে। তা ছাড়া বাগেরহাটের ষাটগম্বুজ মসজিদে পাওয়া গেছে পোড়ামাটির অপূর্ব সুন্দর কাজ। পোড়ামাটির এই ফলক বাংলার প্রাচীন মৃিশল্প। সম্প্রতি নরসিংদীর উয়ারী-বটেশ্বরে পাওয়া গেছে প্রায় হাজার বছর আগের সভ্যতার নিদর্শন। মাটি খুঁড়ে পাওয়া গেছে নানা ধরনের সুন্দর মাটির পাত্র আর ফলক।
মৃিশল্পের বর্তমান ব্যবহার
আজকাল যদিও প্রাচীন আমলের মতো সে রকম টেরাকোটা আর তৈরি হচ্ছে না, তবে পোড়ামাটির নকশার কদর বেড়েছে। বড় বড় সরকারি-বেসরকারি ভবনে আজকাল সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য নানা রকম নকশা করা মাটির ফলক ব্যবহূত হয়ে থাকে। আমাদের দেশের কুমারেরাই এসব তৈরি করছেন।
উপসংহার
মৃিশল্পের কাজ এ দেশে শুরু হয়েছে হাজার বছর আগে। এই শিল্প আমাদের ঐতিহ্য ও গর্ব। এ দেশের মানুষের মন যে শিল্পীর মন, মৃিশল্প তারই পরিচয় বহন করে। সামাজিক ও অর্থনৈতিক বিকাশের জন্য এই শিল্পের আধুনিকায়ন প্রয়োজন। এই শিল্পের উন্নয়ন ও সম্প্রসারণে সরকারসহ সব মানুষকে এগিয়ে আসা দরকার।
তত্ত্বাবধায়ক, শিশুবান্ধব পাঠশালা, গাইবান্ধা
স্বেচ্ছাসেবী শিক্ষক, শিবরাম আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গাইবান্ধা

Post Top Ad

Your Ad Spot

Pages